Home অন্যান্য বিতর্কিত মন্ত্রী যারা এবার বাদ পড়লেন

বিতর্কিত মন্ত্রী যারা এবার বাদ পড়লেন

9
0
SHARE

বিতর্কিত মন্ত্রী যারা – একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে পুরনো অনেক মন্ত্রি বাদ পড়েছেন। এর মধ্যে সবাই খুঁজছে কেন তারা বাদ পড়েছেন। আর এই বাদ পড়ার তালিকায় রয়েছেন, বিতর্কিত কিছু মন্ত্রী।

এদের মধ্যে রয়েছে:

মতিউর রহমান

ধর্মমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন অধ্যক্ষ মতিউর রহমান। তিনি এবার বাদ পড়েছেন। ধর্মমন্ত্রী থাকাকালে হজ্ব নিয়ে নানা সময়ে তিনি বিতর্কিত হয়েছেন। আত্মীয়-স্বজনের অপ্রিয় কর্মকাণ্ডের জন্যও তিনি সমলোচিত ছিলেন।

শাজাহান খান

নৌমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। কিন্তু এই শ্রমিক নেতা নানা কারণে সমলোচিত হয়েছেন বিগত সরকারের আমলে। বিতর্কিত ভূমিকার কারণে সড়ক দুর্ঘটনা এবং সড়ক খাতে কোনো কিছু হলেই আলোচনায় আসে পরিবহন খাতের নেতা ও নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের নাম। সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থীর প্রাণহানির ঘটনায় হেসে কথা বললে তিনি দেশজুড়ে সমলোচনার মুখে পড়েন।

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া

পুত্রদের ও কন্যার জামাতাকে ঘিরে বিতর্ক পিছু ছাড়নি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার। আওয়ামী লীগের শুরু হওয়া ১৯৯৬ সালে শাসনকালের মেয়াদে মায়া প্রতিমন্ত্রী থাকাকালে বড় ছেলে দীপু চৌধুরীকে ঘিরে নানা কাহিনী তাকে বিব্রত করেছিল।

মুজিবুল হক

রেলমন্ত্রী থাকা অবস্থায় তিনি রেলের দুর্ভোগ নিয়ে সমলোচিত ছিলেন। রেলওয়ে যা আয় করেছে তার চেয়ে দ্বিগুণেরও বেশি ব্যয় হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছিল।

শামসুর রহমান ডিলু

একদিকে বয়সের ভার অন্যদিকে পরিবারে বিরোধ ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগের পাশাপাশি ও দলীয় কর্মীদের অবমূল্যায়নের অভিযোগও উঠেছে তার বিরুদ্ধে। একারণে এবার তিনি মন্ত্রীসভা থেকে বাদ পড়েছেন বলে শোনা যায়। তিনি ভূমি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করছিলেন।

বিতর্ক নেই, তবুও বাদ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার জন্য ৪৬ জনের নাম ঘোষণা করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এর মধ্যে মন্ত্রী ২৪ জন, প্রতিমন্ত্রী ১৯ জন ও উপমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন ৩ জন। এবারের মন্ত্রিসভায় পুরনো কয়েকজন মন্ত্রী যেমন দায়িত্ব পেয়েছেন তেমনি নতুন অনেক সদস্যও জায়গা করে নিয়েছেন। তবে কোনো বিতর্ক না থাকা সত্ত্বেও বাদ পড়েছেন বেশ কয়েকজন পুরনো মন্ত্রী।

বেগম মতিয়া চৌধুরী

এবারের মন্ত্রিসভায় জায়গা পাননি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী। ২০০৮ এবং ২০১৪ সালে মতিয়া চৌধুরী কৃষি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন। নিষ্ঠাবান এবং সৎ মন্ত্রী হিসেবে তার সুনাম রয়েছে। কিন্তু তবুও তার বাদ পড়াটা এবার চমক হয়েই এসেছে।

আসাদুজ্জামান নূর

আসাদুজ্জমান নূর দশম জাতীয় সংসদে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। দেশজুড়ে ব্যাপক জনপ্রিয় এই সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মন্ত্রী হিসেবেও দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। কোনো বিতর্কে তার নাম না জড়ালেও এবারের মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়েছেন তিনি।

মির্জা আজম

মির্জা আজম সর্বশেষ মন্ত্রিসভায় পাট মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন। বেশ বিচক্ষণতার সঙ্গেই তিনি তার কাজ সামলেছেন বলে জানা যায়। কিন্তু এবারের মন্ত্রিসভায় জায়গা হয়নি তার।

ইসমত আরা সাদেক

দশম জাতীয় সংসদে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ছিলেন ইসমত আরা সাদেক। তিনিও বিতর্কের ঊর্ধ্বে থেকেই তার দায়িত্ব পালন করেছেন। তবে এবারের মন্ত্রিসভায় জায়গা হারিয়েছেন তিনি।

মেহের আফরোজ চুমকি

নারী ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন মেহের আফরোজ চুমকি। তিনিও বেশ দক্ষতার সঙ্গে তার দায়িত্ব পালন করেছেন। তাকে নিয়ে কোনো বিতর্ক না থাকলেও এবারের মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়েছেন তিনি।

 

image_pdfimage_print