Home ঢাকা ক্যাম্পাস জীবনব্যাপী শিক্ষণ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সেমিনারে শিক্ষামন্ত্রী জীবনব্যাপী শিক্ষা ব্যক্তি ও সমাজ উন্নয়নের...

জীবনব্যাপী শিক্ষণ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সেমিনারে শিক্ষামন্ত্রী জীবনব্যাপী শিক্ষা ব্যক্তি ও সমাজ উন্নয়নের চাবিকাঠি ঢাকা,

SHARE
বিশ্ববিদ্যায়ল পরিক্রমা ডেস্ক : শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, জীবনব্যাপী শিক্ষা ব্যক্তি ও সমাজ উন্নয়নের চাবিকাঠি। সমাজ রূপান্তরের হাতিয়ার হিসেবে শিক্ষা শুধু একটি ডিগ্রী বা ডিপ্লোমা অর্জনের মধ্যেই শেষ নয়, এটি একটি জীবনব্যাপী প্রক্রিয়া।
শিক্ষামন্ত্রী আজ রাজধানীর তেজগাঁওয়ে আহ্ছানউল্লা ইউনিভার্সিটি অব্ সাইন্স এন্ড টেকনোলজি অডিটোরিয়ামে ’লাইফলং লার্নিং ইন ডেভেলপিং কান্ট্রিজ উইথ স্পেশাল রেফারেন্স টু বাংলাদেশ’ (খরভবষড়হম খবধৎহরহম রহ ফবাবষড়ঢ়রহম পড়ঁহঃৎরবং রিঃয ংঢ়বপরধষ ৎবভবৎবহপব ঃড় ইধহমষধফবংয) শীর্ষক দুইদিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সেমিনারের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন। ইউনেস্কো’র সহযোগিতায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের ’বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব্ লাইফ লং লার্নিং (বিআইএলএল)’ এ সেমিনারের আয়োজন করে।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বর্তমান যুগের শিক্ষার ধারনার সাথে লাইফলং শিক্ষার ধারনা মিলে যায়। এর মানে জীবনের জন্য শিক্ষা, জীবন ধারনের জন্য শিক্ষা এবং সারা জীবন ধরে জ্ঞান অর্জন। জীবনব্যাপী শিক্ষা একজন পরিপূর্ণ, সচেতন, সংস্কৃতিবান ও স্বা^বলম্বী মানুষ হিসেবে গড়ে তোলে। তিনি বলেন, ’আমাদের নবী (সা:) বলেছেন, দোলনা থেকে কবর পর্যন্ত জ্ঞানের সন্ধান করো।’ তাঁর এ বাণী সকল ধর্মের মানুষকে জ্ঞান অর্জনে উৎসাহিত করে।
শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, জীবন ধারণের জন্য শিক্ষা হচ্ছে পেশা হিসেবে গ্রহণের জন্য কোন সুনির্দিষ্ট বিষয়ে জ্ঞান অর্জন এবং এর ধারাবাহিক উন্নয়ন। বাংলাদেশের টেকসই উন্নয়নের জন্য জীবনব্যাপী শিক্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। জীবনব্যাপী শিক্ষার ধারনা যদি বাংলাদেশে অগ্রাধিকার পায়, তাহলে বাংলাদেশ পৃথিবীতে অন্যতম প্রগতিশীল জাতি হিসেবে পরিচিতি লাভ করবে।
তিনি বলেন, জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার চতুর্থ লক্ষ্য (এসডিজি-৪) অনুযায়ী ২০৩০ সালের মধ্যে অন্তর্ভূক্তিমুলক সমতাভিত্তিক মানসম্পন্ন শিক্ষা অর্জন এবং সকলের জন্য জীবনব্যাপী শিক্ষার সুযোগ তৈরি করতে হবে। আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থায় তাই জীবনব্যাপী শিক্ষাকে অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে গ্রহন করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে হবে।
ঢাকা আহছানিয়া মিশনের প্রেসিডেন্ট কাজী রফিকুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ইউনেস্কো ঢাকা অফিসের ইন-চার্জ সান লেই, ডেনমার্কের কোপেনহেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এন্ডার্স হলম্ এবং বিআইএলএল-এর পরিচালক অশোক ভট্টাচার্য।