Home ক্যাম্পাস খবর ঢাবি-এ ‘রোবটিক্স-এর ভবিষ্যৎ এবং বাংলাদেশের সম্ভাবনা’

ঢাবি-এ ‘রোবটিক্স-এর ভবিষ্যৎ এবং বাংলাদেশের সম্ভাবনা’

SHARE

বিশ্ববিদ্যায়ল পরিক্রমা ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রোবটিক্স এন্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ও
চ্যানেল আই এর যৌথ উদ্যোগে ‘ঋঁঃঁৎব ড়ভ জড়নড়ঃরপং ধহফ ঃযব ঙঢ়ঢ়ড়ৎঃঁহরঃু ভড়ৎ
ইধহমষধফবংয’ শীর্ষক এক সেমিনার আজ ৪মার্চ ২০১৯ সোমবার বিশ^বিদ্যালয়ের
আরআই খান মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন
ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ
আহ্ধসঢ়;মেদ পলক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-
ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ।
সেমিনারে ‘ঋঁঃঁৎব ড়ভ জড়নড়ঃরপং ধহফ ঃযব ঙঢ়ঢ়ড়ৎঃঁহরঃু ভড়ৎ ইধহমষধফবংয’ শীর্ষক
প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মেহেদী শামস। ঢাবি রোবটিক্স এন্ড মেকাট্রনিক্স
ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারপার্সন ড. লাফিফা জামালের সভাপতিত্বে
সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন আইবিএ’র পরিচালক অধ্যাপক
ড. সৈয়দ ফারহাত আনোয়ার, চ্যানেল আই-এর পরিচালক ও বার্তা প্রধান শাইখ
সিরাজ এবং রবি আজিয়াটা লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান
নির্বাহী মাহতাব উদ্দিন আহমেদ।
ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্ধসঢ়;মেদ
পলক বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ই মার্চের ভাষণে
রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক রূপকল্প দিয়েছিলেন। আমরা জাতির
জনকের স্বপ্নের সেই সোনার বাংলা গড়তে একটি শ্রমভিত্তিক অর্থনীতি
থেকে জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতিতে রূপান্তর হওয়ার চেষ্টা করছি। এই উন্নয়ন যাত্রায়
তথ্য প্রযুক্তি হচ্ছে প্রধান হাতিয়ার। তথ্যপ্রযুক্তির বিকাশে বর্তমান সরকারের
গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির
উন্নয়নে সব ধরনের সহযোগিতা করছে সরকারের আইসিটি বিভাগ।
প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ বলেন, শিক্ষা
ও গবেষণায় আমাদের আরও গুরুত্ব দেয়া দরকার। বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে
সমসাময়িক উদ্ভাবন ও এর প্রায়োগিক দিক উল্লেখ করে তিনি বলেন,
কৃষিখাতসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির অবদান অপরিসীম। বাংলাদেশের সর্বত্র
কৃষিতে নতুন প্রযুক্তির আরও ব্যাপক ব্যবহার প্রয়োজন।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ২০১৮ সালের আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াডে
প্রথমবার অংশগ্রহন করে। ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ দেশের বিভিন্ন
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহনে গঠিত তিনটি টিম-‘রোবো
টাইগার’, ‘টিম বাংলাদেশ’ এবং ‘রোবো চ্যালেঞ্জার’ এই
প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করে গোল্ড মেডেলসহ বিভিন্ন পুরস্কার অর্জন
করে। অনুষ্ঠানে আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহনকারীদের
সম্মাননা জানানো হয়। bporikromanewsbd.com