Home জাতীয় দেশি বিজ্ঞাপনে বিদেশি মডেলে বিধি নিষেধ আসছে : তথ্যমন্ত্রী

দেশি বিজ্ঞাপনে বিদেশি মডেলে বিধি নিষেধ আসছে : তথ্যমন্ত্রী

1
0
SHARE

বিশ্ববিদ্যালয় পরিক্রমা ডেস্ক : বিভিন্ন পণ্য-প্রসাধনীর প্রচারণায় দর্শকদের নজর কাড়তে আজকাল প্রায়শই দেশি বিজ্ঞাপনে বিদেশি মডেলদের দিয়ে কাজ করানো হয়। তবে বিদেশি মডেল দিয়ে বিজ্ঞাপন নির্মাণের ক্ষেত্রে বিধি নিষেধ আনা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

একইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, বিদেশি চ্যানেলে দেশি বিজ্ঞাপন প্রচার করে আইন লঙ্ঘন করলে, লাইসেন্স বাতিলসহ আর্থিক জরিমানা করা হবে। বাংলাদেশ সরকারের লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা করতে হলে আইন মানতেই হবে।

বুধবার (১০ এপ্রিল) সচিবালয়ে বেসরকারি টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্স (অ্যাটকো) নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠকে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমাদের দেশের বিজ্ঞাপণ নির্মাতা, কলাকুশলীদের দিয়ে বিজ্ঞাপন না বানিয়ে বিদেশ থেকে মডেল ও নির্মাতা ভাড়া করে বিজ্ঞাপন নির্মাণ করেন। সেক্ষেত্রেও একটি নীতিমালা হবে।’

বিদেশি চ্যানেলে দেশি বিজ্ঞাপন পুরোপুরি বন্ধসহ বিদেশি চ্যানেলগুলোকে ক্লিন ফিড নিশ্চিত করার বিষয়ে অ্যাটকো’র দাবির প্রেক্ষিতে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এখন দুটি প্রতিষ্ঠান ডাউনলিঙ্ক করে বিদেশি চ্যানেল দেখাচ্ছে। তারা এটি বন্ধ করতে ১৫ দিন সময় নিয়েছ। এর মধ্যে বন্ধ না করলে তাদের লাইসেন্স বাতিলের পাশাপাশি দুবছরের কারাদণ্ডও ভোগ করতে হবে।’

আইন অনুযায়ী কোনও বিজ্ঞাপনই ডাউনলিংক প্রোগ্রামে দেখাতে পারে না এবং বিষয়টি বেআইনি- উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘একটি স্বার্থান্বেষী মহল এ নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি করার চেষ্টা করছে। সরকার কোনও চ্যানেল বন্ধ করেনি, বন্ধ করতে চায় না, শুধু বিজ্ঞাপন প্রচারের নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।’

টিভি চ্যানেল সরকার চাপিয়ে দেয়নি বরং ব্যবসায়ীরাই তদবির করে লাইসেন্স নিয়েছেন বলেও জানান মন্ত্রী।

ক্যাবল নেটওয়ার্কদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা করতে হলে আইন মানতে হবে। যদি কেউ যৌক্তিক সময় চায় তবে সেটা বিবেচনা করা যেতে পারে।’

বৈঠকে অ্যাটকো নেতারা দাবি করেন, বিদেশি চ্যানেল থেকে বিজ্ঞাপন ফিরে এলে টেলিভিশনগুলো ঘুরে দাঁড়াতে পারবে।

বৈঠকে আরও বক্তব্য দেন- চ্যানেল ২৪-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে আজাদ, ডিবিসি চ্যানেলের চেয়ারম্যান ইকবাল সোবহান চৌধুরী, অ্যাটকোর নতুন সভাপতি মাছরাঙা টেলিভিশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী, একাত্তর টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক বাবু ও আরটিভির চেয়ারম্যান মোরশেদ আলম। বৈঠকে আরও কয়েকটি টেলিভিশন চ্যানেলের মালিকরা উপস্থিত ছিলেন।