Home আন্তর্জাতিক ট্রাম্পের হুমকি সেপ্টেম্বরে ক্লাস শুরু না করলে স্কুল-কলেজের ফান্ড বাতিল

ট্রাম্পের হুমকি সেপ্টেম্বরে ক্লাস শুরু না করলে স্কুল-কলেজের ফান্ড বাতিল

SHARE

বিশ্ববিদ্যালয় পরিক্রমা ডেস্ক :  আসছে সেপ্টেম্বর নতুন শিক্ষাবর্ষে সকল স্কুল-কলেজ না খুললে ফেডারেল মঞ্জুরি বন্ধের হুমকি দিলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ ধরনের পরিবেশ তৈরীর জন্যে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য দফতর (সিডিসি) কেও স্বাস্থ্যবিধি ঢেলে সাজানোর চাপ দিচ্ছেন ট্রাম্প নিজে এবং তার ঘনিষ্ঠজনেরা।

যদিও গত ৯ দিন ধরেই যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা অকল্পনীয় হারে বেড়েছে। সর্বশেষ ৮ জুলাই বুধবার সারা আমেরিকায় সংক্রমিত হয়েছে ৫৯ হাজার জন। এরমধ্যেও বেশ কটি স্টেটের তথ্য সংযোজিত করা সম্ভব হয়নি রাত ১১টা পর্যন্ত।

৭ জুলাই মঙ্গলবার পর্যন্ত দু’সপ্তাহে দৈনিক সংক্রমণ বৃদ্ধির হার হচ্ছে ৭২%। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি হচ্ছে আরিজোনায়। সেখানেও টেক্সাস স্টেটের মতোই হাসপাতালে সিট সংকট দেখা দিয়েছে। যেমনটি মার্চ এপ্রিলে ছিল নিউইয়র্ক অঞ্চলে। এমনি কঠিন একটি বাস্তবতাকে আমলে না নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সবকিছু খুলে দেয়ার জন্যে চাপ দিচ্ছেন।

বলার অপেক্ষা রাখে না যে, হোয়াইট হাউজের নেতৃত্বে গঠিত ‘করোনাভাইরাস টাস্ক ফোর্স’র মতামত উপেক্ষা করে মে মাসেও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বেশ কটি স্টেটের লকডাউন উঠিয়ে নেয়ার চাপ সৃষ্টি করেছিলেন। তার সমর্থনপুষ্টরা বাস্তবতা উপেক্ষা করে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড চালু করেছিলেন, যার খেসারত এখন দিতে হচ্ছে টেক্সাস, ফ্লোরিডা, আরিজোনাসহ ৩৭টি স্টেটকে। এখন স্কুল-কলেজ পুরোপুরি খোলার জন্যে চাপ অব্যাহত রেখেছেন ট্রাম্প।

৭ জুলাই বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার নাগরিক ছাড়াও নীতি-নির্ধারকদের সাথে দফায় দফায় বৈঠকে মিলিত হয়েছেন এই একটি ইস্যুতে। যে কোন উপায়ে সেপ্টেম্বরে স্কুল-কলেজসহ ব্যবসা-অফিস পুরোপুরি খুলে দিতে চান তিনি। ৮ জুলাই রীতিমত হুমকি দিয়েছেন এক টুইট বার্তায়। যে সব স্কুল ডিস্ট্রিক্ট তার আহবানে সাড়া দেবে না, সেগুলোতে ফেডারেল মঞ্জুরি বাতিল করা হবে। এ ধরনের হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে সর্বত্র ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। কারণ, প্রায় প্রতিটি স্টেটের প্রশাসনই গতকদিন ধরেই সেপ্টেম্বরে ক্লাস চালু নিয়ে নানা প্রক্রিয়া নিয়ে ভাবছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সর্ববৃহৎ স্কুল ডিস্ট্রিক্ট হচ্ছে নিউইয়র্ক। এখানকার গভর্ণর ও মেয়র মোটামুটি নীতিগত একটি সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন যে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ক্লাস চালুর জন্যে সপ্তাহে ৩দিন করে গ্রুপভিত্তিক ক্লাস নেয়া হবে। অর্থাৎ বর্তমানের ক্লাসের ছাত্র-ছাত্রীদের বিভিন্ন গ্রুপে ভাগ করা হবে। প্রথম তিন দিন যারা ক্লাস করবে, পরবর্তী তিন দিন তারা ছুটিতে থাকবে। অপর স্কুল ডিস্ট্রিক্ট লস এঞ্জেলেসের কর্মকর্তারা ভাবছেন, সকল ক্লাস অনলাইনে নিতে। কারণ, ছাত্র-ছাত্রীরা স্কুল-কলেজে গেলে কখনোই তারা স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করবে না।

অপরাপর স্কুল ডিস্ট্রিক্ট গুলোও মতবিনিময় চালাচ্ছে ক্লাস শুরু করা নিয়ে। তবে সকলেই করোনার গতি-প্রকৃতির আলোকে সর্বশেষ সিদ্ধান্ত নিতে চাইলেও ট্রাম্প এক ধরনের চাপ সৃষ্টি করেছেন আগাম সিদ্ধান্ত ঘোষণার জন্যে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেছেন, নভেম্বরের নির্বাচনে নিজের ক্ষেত্র তৈরী করার অভিপ্রায়ে ট্রাম্প জনজীবনকে অস্থিরতায় নিপতিত করতে চাচ্ছেন। করোনার প্রকোপ যদি নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব না হয়, তাহলে পুরোদেশ আবারো ভীতিকর পরিস্থিতির মধ্যে পড়বে। সে অবস্থায় স্কুল-কলেজে ক্লাস চালু করা কোনভাবেই সম্ভবপর হবে না।

স্বাস্থ্যবিজ্ঞানীরাও এমন অভিমত দিয়েছেন জাতীয় সংলাপের সময়। বাস্তবতার আলোকে বিজ্ঞানভিত্তিক সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থ হলে পুনরায় মহামারিতে রূপ নেবে করোনা পরিস্থিতি-এমন মতামত ব্যক্ত করার পরই ট্রাম্প বেপরোয়া হয়ে হুমকি-ধমকি দিচ্ছেন বলেও সমালোচকরা মন্তব্য করেছেন।

এদিকে, জানা গেছে যে হোয়াইট হাউজের করোনা টাস্কফোর্স শীঘ্রই একটি রোডম্যাপ ঘোষণা করবে স্কুল-কলেজ পুনরায় খোলার ব্যাপারে।