Home আন্তর্জাতিক হিলিতেও পেঁয়াজের বাজারে আগুন!

হিলিতেও পেঁয়াজের বাজারে আগুন!

SHARE

বিশ্ববিদ্যালয় পরিক্রমা ডেস্ক : হঠাৎ করে কোনো কারণ ছাড়াই ভারত সরকার তাদের অভ্যন্তরীণ বাজারে মূল্য বৃদ্ধি ঠেকাতে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়ায় দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে।এতে এক দিনের ব্যবধানে অস্থির হয়ে উঠেছে পেঁয়াজের বাজার। পাইকারি ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজিতে বাড়লেও খুচরা বেড়েছে দ্বিগুণ। পচা ও নষ্ট পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায়। পচার চেয়ে কিছুটা ভালো পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকায়। রবিবার ও সোমবারে প্রতিকেজি পেঁয়াজ বন্দর এলাকার আড়ৎগুলোতে পাইকারি বিক্রি হয় ৩৪ খেকে ৩৫ টাকা কেজি দরে। মঙ্গলবার তা সকাল থেকে বিক্রি হয় দি¦গুণ দামে।

হিলি স্থল বন্দরের পেয়াজ আমদানিকারক ব্যবসায়ীরা জানান, পূর্ব ঘোষণা ছাড়া ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করায় তারা বিপাকে পড়েছেন। অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে প্রায় ১০ হাজার মেট্টিক টন পেঁয়াজের এলসি, সেই সঙ্গে পাইপ লাইনে আটকে থাকায় প্রায় তিন শতাধিক পেঁয়াজের গাড়ি। মঙ্গলবার দেশে প্রবেশের অপেক্ষায় জিরো পয়েন্ট থেকে প্রায় ৫০ গাড়ি পেঁয়াজ ফিরিয়ে দিয়েছে ভারত কাষ্টমস। সেসব গাড়ির পেঁয়াজের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তায় পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। টেন্ডার করা পেঁয়াজগুলো রপ্তানি করার জন্য ভারতীয় কাস্টমস ও ব্যবসায়ীদের অনুরোধ করা হলেও এর কোনো ফল মিলছে না।

ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করায় হিলি আড়ৎগুলোতে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের ভীড় লক্ষ্য করা গেছে, দাম নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে পাইকারদের মধ্যে।

হিলি স্থল বন্দর থেকে মূলত পেঁয়াজ উত্তরবঙ্গের দিনাজপুর, নীলফামারী, ঠাকুড়গা, রংপুর , বগুড়া , রাজশাহী ,ঢাকা , সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করা হয়। হঠাৎ পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হওয়ায় বিরূপ প্রভাব পড়া শুরু করে বন্দর এলাকায়। পেঁয়াজের আড়ৎগুলোতে পেঁয়াজের তুলনায় ক্রেতার সংখ্যা বেশি। ক্রেতার চাপ থাকায় ঘণ্টায় ঘণ্টায় পেঁয়াজের দাম বাড়ছে বন্দর এলাকায়। টিসিবির কাছে বিক্রি করা পেঁয়াজ সরবরাহ নিয়ে বেকায়দায় পড়েছেন বন্দরের ব্যবসায়ীরা।

বন্দরের ব্যবসায়ীরা মনে করছেন, পেঁয়াজ নিয়ে সাময়িক সমস্যার তৈরি হবে। তবে র্দীর্ঘ মেয়াদী কোনো সমস্যায় পড়বে না দেশে। ইতোমধ্যে হিলি স্থল বন্দরের ব্যবসায়ীরা পাকিস্তান, তুরস্ক, চীনসহ বিভিন্ন দেশে এলসি খুলেছেন। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে পেঁয়াজগুলো দেশের সমুদ্র বন্দরগুলোতে প্রবেশ করবে। পাশাপাশি দেশের যে পরিমান পেঁয়াজ মজুদ রয়েছে তা দিয়ে অনায়সে দুই মাস চলতে পারবে দেশ। গত ১৫ দিনে হিলি স্থল বন্দর দিয়ে প্রায় ২০ হাজার মেট্টিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। পাশাপাশি দেশের অন্যান্য বন্দর তো রয়েছে।

এ বিষয়ে হিলি শুল্ক রাজস্ব কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, হিলি স্থল বন্দর দিয়ে পেয়াজ আমদানি স্বাভাবিক ছিল রবিবার পর্যন্ত। কিন্তু সোমবার ভারত সরকার পেয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করার কারণে, বন্দর দিয়ে কোনো পেঁয়াজ আমদানি হয়নি এখন পর্যন্ত। পেঁয়াজের আমদানির সম্ভবনা তিনি দেখছেন না। কারণ ভারত সরকার অনানুষ্ঠানিকভাবে পেয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করেছে।

এদিকে আকষ্মিকভাবে ভারত থেকে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ হওয়ায় হিলির আড়ৎগুলোতে তেমন পেঁয়াজের মজুত নেই। যা আছে তা বাড়তি দামে বিক্রি করা হচ্ছে। এ কারণে পেঁয়াজের বাজার অস্থির হয়ে উঠেছে।