Home ব্রেকিং অক্টোবরের যে কোনো দিন থেকে এইচএসসি পরীক্ষা!

অক্টোবরের যে কোনো দিন থেকে এইচএসসি পরীক্ষা!

SHARE

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আসছে অক্টোবর মাসের যে কোনো দিন এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হতে পারে।

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের কারণে স্থগিত থাকা এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কবে এবং কীভাবে নেয়া হবে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর বৈঠকে বসছেন সব শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যানরা।

ওই দিন জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা না নেয়ার সিদ্ধান্ত হওয়ায় কীভাবে অষ্টমের শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে সে বিষয়েও একটি ইউনিক সিদ্ধান্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

যদিও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি গণমাধ্যমকে বলেছেন, অনুকূল পরিবেশ তৈরি হলে তার ১৫ দিনের মধ্যে এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া হবে। পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতি নেয়ার জন্য ১৫ দিন সময় দিয়ে পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ করা হবে।

ফলে আসছে ২৪ সেপ্টেম্বর শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যানরা এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার তারিখ অক্টোবরে মাসে ঘোষণা দিতে পারেন।

শুক্রবার চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক প্রদীপ চক্রবর্তী গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ২৪ সেপ্টেম্বর শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার হলে বসার ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন দিক নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে এইচএসসি পরীক্ষা সম্পর্কিত সিদ্ধান্ত মূলত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শ, কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সুপারিশ ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওপর নির্ভর করছে।

এছাড়া, স্কুলগুলোতে জেএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কীভাবে নেওয়া যায় সে বিষয়েও আলোচনা করা হবে।

এদিকে কলেজের অধ্যক্ষরা বলছেন, এইচএসসি পরীক্ষার সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সম্পর্ক রয়েছে। তাই সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে পরীক্ষা নেয়া যেতে পারে। পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে ঢুকতে এবং বের হওয়ার সময় সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে।

কেন্দ্রের সংখ্যা কয়েকগুণ বাড়াতে হবে। শ্রেণিকক্ষেও তিন ফুট দূরত্ব নিশ্চিত করে শিক্ষার্থীদের বসাতে হবে। কেন্দ্রে ঢোকার সময় হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সবার মুখে মাস্ক থাকতে হবে।

প্রসঙ্গত, গত ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। করোনা মহামারির কারণে তা অনির্দিষ্টকালের জন্য পিছিয়ে যায়।

গত ২২ মার্চ থেকে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়, যা আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। পরীক্ষা বিলম্বিত হওয়ায় প্রায় ১২ লাখ পরীক্ষার্থী চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। তাদের প্রস্তুতিতে চরম বিঘ্ন ঘটেছে।