Home লিড নিউজ ধর্ষণের লাগাম টেনে ধরতে টিপিবির পদযাত্রা ও প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি

ধর্ষণের লাগাম টেনে ধরতে টিপিবির পদযাত্রা ও প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি


সাম্প্রতকি সময়ে দশেরে বভিন্নি স্থানে র্ধষণ ও যৌন নপিীড়নরে ঘটনার লাগাম টনেে ধরতে এবং র্ধষকরে র্সবোচ্চ শাস্তি নশ্চিতি করতে সমাবশে, পদযাত্রা ও প্রধানমন্ত্রী বরাবার স্মারকলপিি দয়িছেে টমি পজটেভি বাংলাদশে (টিপিবি)। আজ রববিার বকিলেে জাতীয় সংসদ সংলগ্ন বঙ্গবন্ধু চত্ত্বরে সমাবশে পরর্বতী পদযাত্রাটি প্রধানমন্ত্রী র্কাযালয়রে উদ্দশ্যেে যাত্রা করলে করোনা পরস্থিতিি ববিচেনায় মরিপুর রোডরে এরোপ্লনে মোড়ে পুলশি থাময়িে দয়ে।সাম্প্রতকি সময়ে দশেরে বভিন্নি স্থানে র্ধষণ ও যৌন নপিীড়নরে ঘটনার লাগাম টনেে ধরতে এবং র্ধষকরে র্সবোচ্চ শাস্তি নশ্চিতি করতে সমাবশে, পদযাত্রা ও প্রধানমন্ত্রী বরাবার স্মারকলপিি দয়িছেে টমি পজটেভি বাংলাদশে (টিপিবি)। আজ রববিার বকিলেে জাতীয় সংসদ সংলগ্ন বঙ্গবন্ধু চত্ত্বরে সমাবশে পরর্বতী পদযাত্রাটি প্রধানমন্ত্রী র্কাযালয়রে উদ্দশ্যেে যাত্রা করলে করোনা পরস্থিতিি ববিচেনায় মরিপুর রোডরে এরোপ্লনে মোড়ে পুলশি থাময়িে দয়ে।

পরে একটি প্রতিনিধিদল প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ৪নং গেটে গিয়ে স্মারকলিপিটি প্রদান করেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিমের পক্ষ থেকে সহকারী প্রেস সচিব ইমরুল কায়েস রানা স্মারকলিপিটি গ্রহণ করেন বলে জানিয়েছেন টিপিবির প্রতিষ্ঠাতা ও ডাকসুর সদ্য সাবেক জিএস গোলাম রাব্বানী।

জানা যায়, বিকেলে পূর্বনির্ধারিত সময় অনুযায়ী জাতীয় সংসদ সংলগ্ন বঙ্গবন্ধু চত্ত্বরে সমাবেশ শুরু হয়। এসময় ধর্ষণ প্রতিরোধে রাষ্ট্রের প্রতি গণমানুষের নৈতিক ও যৌক্তিক দাবিগুলো উপস্থাপন করা হয়। সমাবেশে ধর্ষণ বিরোধী নানান প্ল্যাকার্ড দেখা গেছে।

এসময় গোলাম রাব্বানী বলেন, বর্তমান উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আমরা দেখতে পাচ্ছি ধর্ষণ মহামারি আকার ধারণ করছে। ধর্ষণের এই লাগামহীন বেড়ে চলা রাষ্ট্রযন্ত্রের ব্যর্থতা বলে আমরা মনে করি। আর এজন্য অবশ্যই রাষ্ট্রকে দায়িত্ব নিতে হবে এবং এর লাগাম টেনে ধরতে সম্ভাব্য সব ধরণের পদক্ষেপ রাষ্ট্রকে গ্রহণ করতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা সব জনগণ রাষ্ট্রের সদেচ্ছে দেখতে চাই। সুতরাং উদ্ভূত পরিস্থিতিতে শেখ হাসিনা সরকার ধর্ষণের আইন সংস্কারে উদ্যোগ দিচ্ছে, এজন্য সাধুবাদ জানায়। ১৬০ বছরের পুরানো আইন ধর্ষণের লাগাম টেনে ধরতে পারছেনা। তাই জনগণের দাবির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেছেন, সরকার বিদ্যমান আইনের সাজা বাড়িয়ে মৃত্যুদণ্ডের নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটিকে আমরা স্বাগত জানায়।

‘এর পাশাপাশি বলতে চায়, ধর্ষকের জন্য কোন মানবাধিকার প্রয়োগ হতে পারে না। অনেকেই বলবেন, সভ্য সমাজে প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড নিয়ে অনেকের দ্বিমত আছে। কিন্তু আমরা মনে করি, প্রয়োজনে আইন সৃষ্টি করে আবার প্রয়োজনে কোন আইন মানে না’-যোগ করেন রাব্বানী

এদিকে, সমাবেশ শেষে জাতীয় সংসদ অভিমুখী পদযাত্রাটি মানিক মিয়া এভিনিউ ঘুরে প্রধানমন্ত্রীর নিকট ন্যায্য দাবী সংবলিত স্মারকলিপি প্রদানের উদ্দেশ্যে তাঁর কার্যালয়ের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করলে, করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় মিরপুর রোডের এরোপ্লেন মোড়ে মিছিল থামিয়ে দেয় পুলিশ। পরে টিপিবির পক্ষ থেকে একটি প্রতিনিধিদল প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ৪ নং গেটে আসলে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিমের পক্ষ থেকে সহকারী প্রেস সচিব ইমরুল কায়েস রানা স্মারকলিপিটি গ্রহণ করেন।