Home ক্যাম্পাস খবর ঢাবি অধ্যাপক বিশ্বজিত ঘোষের পদক বাতিলের দাবি

ঢাবি অধ্যাপক বিশ্বজিত ঘোষের পদক বাতিলের দাবি

SHARE

যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ওঠায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষের বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ও একুশে পদক বাতিলের দাবি জানিয়েছে জাসদের ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ-বিসিএল। রবিবার গণমাধ্যমে পাঠানো বিসিএল এর কেন্দ্রীয় সভাপতি গৌতম চন্দ্র শীল ও সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমানের স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এই দাবি জানায় সংগঠনটি।

এর আগে, গত মার্চ মাসে বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান সৈয়দ আজিজুল হকের কাছে বিশ্বজিৎ ঘোষের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের এক ছাত্রী। এর প্রেক্ষিতে ২৯ মার্চ বাংলা বিভাগের একাডেমিক কমিটির সভায় সর্বসম্মতভাবে বিশ্বজিৎ ঘোষের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, তিনি ২০১১ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরষ্কার ও ২০১৯ সালে একুশে পদক লাভ করেন। তিনি রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্বও পালন করেছেন।
বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ-বিসিএল বিশ্বাস করি, দুর্জন বিদ্বান হলেও পরিত্যাজ্য। মুক্তচিন্তার চারণভূমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন শিক্ষক কর্তৃক শিক্ষার্থীকে যৌন নিপীড়নের মত ঘটনা নারী জাগরণের অন্তরায় এবং জাতির জন্য কলংকজনক। মুখোশের আড়ালের এই হীন চরিত্রের যৌন নির্যাতনকারীর সাথে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরষ্কার, একুশে পদকসহ যে কোন রকম সম্মাননাই বেমানান। যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে আমাদের দাবি থাকবে অনতিবিলম্বে তার বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরষ্কার ও একুশে পদক বাতিল করা হোক এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনা হোক।’

এদিকে, গত ১৪ এপ্রিল এক মানববন্ধনে বিশ্বজিৎ ঘোষকে ‘যৌন নিপীড়নকারী’ আখ্যা দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তার স্থায়ী বহিষ্কারের দাবি জানায় সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট (মার্ক্সবাদী)।