Home ক্যাম্পাস খবর নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি এবং ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর যৌথ আয়োজনে “ক্লাইমেট স্মার্ট...

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি এবং ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর যৌথ আয়োজনে “ক্লাইমেট স্মার্ট এগ্রিকালচার” বিষয়ে জাতীয় পর্যায়ের গবেষণা শেয়ারিং সেমিনার অনুষ্ঠিত

SHARE

পরিক্রমা ডেস্ক : বেসরকারী পর্যায়ে উচ্চ শিক্ষার পথপ্রদর্শক এবং বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের মাঝে র‌্যাংকিং এ প্রথম স্থান অর্জনকারী নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি এবং ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর যৌথ আয়োজনে আজ নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে “ক্লাইমেট স্মার্ট এগ্রিকালচার” বিষয়ে জাতীয় পর্যায়ের গবেষণা শেয়ারিং সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক আতিকুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি জনাব সাবের হোসেন চৌধুরী, এম পি।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের জাতীয় পরিচালক সুরেশ বার্টলেট, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের জ্যেষ্ঠ অপারেশনস পরিচালক চন্দন জেড গোমেজ, প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু, এ আর মালিক সিডস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব আতাউস সোপান মালিক, রেসিলিয়েন্ট লাইভলিহুডস-এর প্রোগ্রাম ম্যানেজার মেহের নিগার ভূঁইয়া, বাংলাদেশে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি দল এবং এনএসইউর স্কুল অফ হেলথ অ্যান্ড লাইফ সায়েন্সেসের ডিন ড. হাসান মাহমুদ রেজা।

“বাংলাদেশে জলবায়ু স্মার্ট এগ্রিকালচারের কার্যকারিতা মূল্যায়ন” প্রকল্পের প্রধান তদন্তকারী মোঃ জাকারিয়া, পিএইচডি, তার গবেষণার ফলাফল উপস্থাপন করেন। তিনি বাংলাদেশের পাঁচটি ভৌতিক অঞ্চল- চর, হাওর, প্লাবনভূমি, উপকূলীয় অঞ্চল এবং পার্বত্য অঞ্চলে উদ্ভাবনী জলবায়ু স্মার্ট অনুশীলন এবং কৌশলগুলির গবেষণা সম্পর্কে বিশদভাবে আলোচনা করেন। সেমিনারে একটি উন্মুক্ত আলোচনার এর আয়োজন করা হয় যেখানে অংশগ্রহণকারীরা তাদের মতামত প্রদান করে এবং চলমান জলবায়ু পরিবর্তন এবং বাংলাদেশে কৃষির ভবিষ্যত এবং সম্ভাবনা সম্পর্কে প্রাসঙ্গিক প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করে। মাননীয় সংসদ সদস্য কৃষি খাতে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় তার মূল্যবান চিন্তা ব্যক্ত করেন। তিনি পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপের মাধ্যমে সহযোগিতা ওপর জোর দেন এবং স্থানীয় প্রতিক্রিয়াকে অন্তর্ভুক্ত করে জাতীয় পর্যায়ে কার্যকর নীতি প্রণয়নের জন্য গবেষণার ধারণাকে স্বাগত জানান। উপাচার্য অধ্যাপক আতিকুল ইসলাম খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে জলবায়ু সহনশীল কৃষি পদ্ধতির গুরুত্বের ওপর জোর দেন।

SHARE